Hypocrisy of Trinamool … তৃণমূলের ভণ্ডামি

 

    Trinamool Supremo Ms Mamata Banerjee has been seen recently telling in an interview that she is against the Pension Bill and privatisation of the Insurance Sector. But what was her & her party’s role in the Parliament on Thursday was seen by all who was watching Lokasabha TV channel. When CPI(M) leader Basudeb Acharia demanded ‘Division’ on the Bill, all the members of TMC present at that time in the parliament voted in favour, while all the left party MPs along with other non-Congress & non-BJP MPs voted against the bill.

basudebacharia

    দ্বিতীয় ইউ পি এ সরকারের পেশ করা পেনশন বিলে নাকি সমর্থন নেই তৃণমূল নেত্রী মমতা ব্যানার্জির। একটি বেসরকারী চ্যানেলে সাক্ষাৎকার দিতে গিয়ে তৃণমূল নেত্রী বলেছেন, ‘‘আমরা পেনশন বিল এবং বীমা ক্ষেত্র বেসরকারীকরণের বিরুদ্ধে। এখানে মানুষের জীবনের নিরাপত্তার প্রশ্ন আছে। সেটা বাইরের হাতে ছেড়ে দিলে মুশকিল। কারণ শেয়ারের ওঠানামা আছে। এটা মানুষের শেষ বয়সের টাকা। সেই টাকা নিয়ে ঝুঁকি নেওয়া যায়না।’’

    তৃণমূল নেত্রীর এই মন্তব্য থেকে স্পষ্ট যে তিনি পেনশন বিলের বিপদ সম্পর্কে ওয়াকিবহাল। কিন্তু বাস্তবে তাঁর এবং তৃণমূল কংগ্রেসের এই বিল নিয়ে কী ভূমিকা আমরা দেখলাম? গত বৃহস্পতিবার ঐ বিপজ্জনক পেনশন বিল পেশ হয় সংসদে। পেশের সময়ই বামপন্থীরা প্রবল বিরোধিতা করেন। ভোটাভুটির দাবি জানান বামপন্থী সাংসদরা। বামপন্থীদের এই বিলের বিরোধিতায় সমর্থন জানায় অকংগ্রেস এবং অ বি জে পি দলগুলি। অপরদিকে বি জে পি’র সমর্থন নিয়ে বিল পেশের ভোটে জেতে ইউ পি এ সরকার। এই ভোটেও বিল পেশের পক্ষে ভোট দেন উপস্থিত দু’জন তৃণমূল সাংসদ অম্বিকা ব্যানার্জি, গোবিন্দ নস্কর। অথচ তৃণমূল নেত্রী বলেছেন, তাঁর ১৯ জন সাংসদ নিয়ে তিনি ঐ বিলকে সমর্থন করবেন না। অথচ কয়েকদিন আগেই সংসদে পেনশন বিলের সমর্থনে কংগ্রেস-তৃণমূল ও বি জে পি একজোট হয়ে ১১৫টি ভোট দিয়েছে। তৃণমূল নেত্রীর বক্তব্য সঠিক না সংসদে ভোটাভুটির অঙ্কটা সঠিক?

    বি জে পি’র বক্তব্য বিলটি এন ডি এ’র আমলেই আনা হয়েছিল। কংগ্রেস সেই বিলই এনেছে তাই বি জে পি’র সমর্থন দেওয়ার কোন অসুবিধা নেই। এন ডি এ’র আমলে পেনশন বিল আনার সময়ও তাদের সঙ্গী ছিল তৃণমূল। এখনও তারা ঐ বিলের কোন বিরোধিতা করেনি। মন্ত্রিসভার বৈঠকে সামান্য আপত্তিও করেননি তৃণমূল নেত্রী।

    এই বিলের সাহায্যে সাধারণ চাকরিজীবী মানুষের সারা জীবনের আয়ে কোপ বসিয়েছে কেন্দ্র। এই বিল কার্যকর হলে পেনশনের নিশ্চিত অঙ্ক আর থাকবে না। পেনশনের টাকা খাটানো হবে শেয়ার বাজারে। বিদেশী অর্থলগ্নী সংস্থাকে অবাধ সুযোগ করে দেওয়া হচ্ছে। শেয়ার বাজারে খাটানোর ফলে লোকসান হলে তার দায় হবে গ্রাহকের। এই পেনশন বিলের বিরুদ্ধে এক দশক ধরে লড়াই করছেন বামপন্থীরা। আর এই একদশক ধরে বিলের সমর্থনে রয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। প্রথম ইউ পি এ সরকারের আমলে বামপন্থীদের বিরোধিতার ফলে কেন্দ্র ঐ বিল পেশ করতে পারেনি। সংসদে পেশ হওয়ার পর এই বিলটি স্বাভাবিকভাবেই মানুষের মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করেছে। বিধানসভা নির্বাচনের সময় প্রতিকূল পরিস্থিতি বুঝে তৃণমূল নেত্রী বিলের বিরোধিতা করে মন্তব্য করেছেন। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে তাঁর এবং তৃণমূল দলের ভূমিকা সম্পূর্ণ বিপরীত। ভোটের স্বার্থে মানুষের কাছে মিথ্যা বলতে মুখে আটকায়না মমতা ব্যানার্জির।

    পোশাক শিল্পের সঙ্গে যুক্ত লক্ষ লক্ষ শ্রমিক-কর্মচারীদের জীবন-জীবিকাকে বিপন্ন করে তুলেছে কেন্দ্রের আরোপ করা ১০% লেভি। তৃণমূল কংগ্রেস এব্যাপারেও সম্পূর্ণ নীরব। দ্বিতীয় ইউ পি এ সরকারের আমলে পেট্রোপণ্যের দর বাজারের হাতে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। ব্যাঙ্ক, বীমা বেসরকারীকরণ হতে চলেছে। গণবণ্টন ব্যবস্থা গত দুবছরে আরো দুর্বল হয়েছে। কৃষিপণ্য ও খাদ্যশস্য বেআইনী মজুত তথা কালোবাজারি আরো বেড়েছে। কেন্দ্রীয় সরকার এর বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়নি। কৃষিক্ষেত্রে সঙ্কট আ‍‌রো তীব্র হয়েছে। চড়া হারে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি ঘটেছে। কেন্দ্রের নীতি ও কাজগুলির ফলে মানুষের অবস্থা আরো শোচনীয় হয়েছে। কিন্তু কেন্দ্রের শরিক তৃণমূল কংগ্রেস প্রত্যেকটি ক্ষেত্রেই সম্পূর্ণ নীরব। এটাই আসল চরিত্র তৃণমূলের। মুখে বিরোধিতা আর কাজে বিরোধিতা এক নয়।

Advertisements

Tags: , , ,

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s


%d bloggers like this: