BT Cotton – A Chronicle of Farmer Suicide

 

বিদর্ভের মাটিতে দশ পেরোলো বিটি কটন,


আত্মহত্যাও ছাড়িয়ে গেছে দশ হাজার

বিশেষ সংবাদদাতা

    নাগপুর, ২৬শে মার্চ— মোমবাতি নয়, ফসল জ্বালিয়েই বিটি কটনের জন্মদিন পালন করলো বিদর্ভ। দশ বছর আগে এই দিনটিতেই ভারতীয় খেতের ‘বরাত’ নিয়েছিল মার্কিন বহুজাতিকের (মনস্যান্টো) মস্তিষ্ক-প্রসূত বিটি কটন। বিতর্কিত সেই বিটি কটনের একাদশ জন্মদিনে সোমবার বিদর্ভের কয়েক হাজার কৃষক পথে নামলেন। ভামরাজা, হিওয়ারা, বোদবোড়ান, কোসারা আর কাওয়ারায় তাঁরা জড়ো হলেন, সোচ্চার হলেন বহুজাতিকের আর দেশের সরকারের ভ্রান্ত নীতির বিরুদ্ধে। নিজের ঘাম ঝরানো শ্রমের ফসল ফসল পুড়িয়েই এই সঙ্কটাপন্ন কৃষকরা স্লোগান তুললেন, দেশ ছাড়ো বি টি কটন।

    শুরুতে অনুমতি মিলেছিল ১০হাজার হেক্টর জমিতে। তারপর বহুজাতিকের উচ্চ ফলনের ঢক্কানিনাদ আর দেশের সরকারের মদতে কয়েক বছরের মধ্যে সেই এলাকায় বাড়তে বাড়তে এখন ১কোটি ২০লক্ষ হেক্টর ছাড়িয়েছে। দশ বছর আগে এমনই এক ২৬শে মার্চ বিটি কটন ভারতে ছাড়পত্র পেয়েছিল বাণিজ্যিক চাষের। তারপর বছরের পর বছর যেমন বহুজাতিকের থাবায় এদেশের কৃষকের জমির পরিমাণ বাড়তে থেকেছে, একই হারে বেড়ে চলেছে কৃষক-আত্মহত্যার মিছিলও। এই বিদর্ভেই এই ভ্রান্ত প্রয়োগের শিকার হয়ে আত্মঘাতী হয়েছেন ১০হাজারেরও বেশি কৃষক। বিটি কটনের গবেষণাগার বিদর্ভকে এখন মানুষ চেনে আত্মহত্যার রাজধানী নামে। ভ্রান্ত কৃষিনীতির শিকার হয়ে এযাবৎ ভূভারতে দু’লক্ষেরও বেশি কৃষক আত্মঘাতী হয়েছেন।

    তাই ২৬শে মার্চ বিটি কটনের দশম বর্ষপূর্তিতে কৃষি আত্মঘাত-বিধ্বস্ত এই বিদর্ভের পাঁচ পাঁচটা গ্রামে সঙ্কটাপন্ন তুলোচাষী আর আত্মঘাতী কৃষক পরিবারের পরিজনরা মিলিত হলেন আত্মহত্যার প্রলাপ গাইতে, বহুজাতিকের বিরুদ্ধে সশব্দে হুঙ্কার ছুঁড়তে। দাবি তুললেন, শুখা জমির এই বিদর্ভে বন্ধ হোক বিটি কটন সব ধরনের ব্যবসায়িক প্রয়োগ।

    বিদর্ভ জন আন্দোলন সমিতির কিশোর তিওয়ারির কথায়, জি এম প্রযুক্তির প্রয়োগ করতে এই শুখা জমির বিদর্ভকে বেছে নেওয়াটাই তো একেবারে ভুল সিদ্ধান্ত। কেননা বিটি কটন চাষে সেচের প্রয়োজন। আর সেই সেচবিহীন বিদর্ভের জমিতে বিটি বীজ বুনে বছরের বছরে ফসলে মার খাচ্ছেন কৃষকরা। বেছে নিচ্ছেন আত্মহত্যার মতো নির্মম পথ। মোটামুটি বিটি কটন আসার বছর তিনেকের মধ্যেই বিদর্ভের মাটিতে পড়তে শুরু করেছিল তার কু-প্রভাব। ২০০৫সালে ৪লক্ষ হেক্টর জমিতে মার খেয়েছিল বিটি’র ফলন। আর ২০১২-এ ৪২লক্ষ হেক্টর জমি দেখেছে সেই একই ছবি। বহুজাতিক আর দেশের আইন নিয়ন্তাদের ঘটিয়ে দেওয়া গণহত্যার বলি হয়েছেন দশ হাজারেরও বেশি সঙ্কটাপন্ন কৃষক।

    বিটি কটনের উচ্চ ফলনের দাবি যে কতটা ফাঁপা, বিদর্ভের মাটিতে নামলেই তার খোঁজ মেলে। তিওয়ারির কথায়, বিটি কটন কৃষকের ওপর চাপিয়ে দেওয়ার সময় যুক্তি দেওয়া হয়েছিল বাম্পার ফলন আর কম কীটনাশক ব্যবহারের প্রলোভন দেখিয়ে। কিন্তু সরকারী হিসেব নিকেশ খতিয়ে দেখলেই বোঝা যায়, ঐ দাবি দুটো কতটা মিথ্যা। উচ্চ ফলনের প্রতিশ্রুতিকে একেবারে নস্যাৎ করে দিয়ে সরকারী রিপোর্টই জানাচ্ছে, বিটি কটনের ফলন মোটেই বেশি হচ্ছে না, তার ওপর নতুন নতুন কীট, নতুন নতুন রোগের আক্রমণে জর্জরিত কৃষক।

    কৃষিভিত্তিক এক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের যুগ্ম-আহ্বায়ক কিরণ বিসসা হিসেব দিয়েছেন, তুলোর সবচেয়ে বাস্তব ফলন বৃদ্ধি ঘটেছিল গত দশকের শুরুতে। ২০০০-০১ থেকে ২০০৪-০৫সালের মাঝামাঝি সময়ে হেক্টর প্রতি ফলন ২৭৮কেজি থেকে বেড়ে হয়েছিল ৪৭০কেজি। সেসময় কিন্তু মোট তুলো উৎপাদক জমির মাত্র ৫.৬শতাংশ জমি ছিল বিটি বীজের আওতাধীন। আবার ২০০৫-০৬ থেকে ২০১১-১২— এই সময়কালে বিটি কটনের খপ্পরে থাকা জমি বেড়ে হয়েছে মোট তুলোজমির ৯০শতাংশ। কই ফলন তো তেমন বাড়েনি ? কিরণ হিসেব দিয়েছেন, এই বৃদ্ধিটা হেক্টর প্রতি ৪৭০কেজি থেকে বেড়ে ৪৮১কেজি।

    কিরণ অন্ধ্র প্রদেশের একটি হিসেব দিয়েছেন। সেখানকার রাজ্য সরকারের হিসেব তুলে ধরে তিনি জানালেন, ২০১১-র খরিফ মরসুমে ৪৭লক্ষ একর জমিতে বিটি তুলোর চাষ হয়েছে। ফলন মার খেয়েছে ৩৩.৭৩লক্ষ একরে অর্থাৎ ৭১শতাংশ জমিতেই। রাজ্য সরকার বলছে ২০লক্ষ ৪৬হাজার কৃষকের তুলো চাষ মার খেয়েছে এবং যার ক্ষতির পরিমাণ ৩,০৭১.৬কোটি টাকা।

    বিদর্ভ জন-আন্দোলন সমিতির কিশোর তিওয়ারির কথায়, বিটি কটন আসার পর থেকে মহারাষ্ট্রের কৃষকদের সঙ্কট ঘনীভূত হয়েছে। তাঁর হিসেব মতো চলতি বছরে বিটি তুলো চাষীরা ফসল মার খাওয়ায় ১০হাজার কোটি টাকার লোকসান করেছেন। সরকার ক্ষতিপূরণ দেবে বলেছে ২হাজার কোটি টাকা। যা মোট ক্ষতির তুলনায় কিছুই নয়।

    পরিহাসের বিষয়, বেসরকারী বহুজাতিকের বীজ মার খাচ্ছে মাঠে, আর তার ক্ষতিপূরণ জোগাতে হচ্ছে আমাদের সরকারকে।

    তাই বিটি কটনের জন্মদিনে সোমবার বিদর্ভ দেখলো জন্মদিনের এক বেনজির অনুষ্ঠান।

Advertisements

Tags: , , , , , , , , ,

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s


%d bloggers like this: