Minorities At Crossroads

হিন্দুত্ব তার সহনশীল মুখটা হারিয়ে ফেলছে

দেবেশ রায়

শ্রী ফলি এস নরিম্যান বর্তমানে ভারতের শ্রেষ্ঠ আইনজীবীদের একজন৷‌ সাংবিধানিক বিধি ও রীতি সম্পর্কে তাঁর মতামত সারা দেশে গভীর বিশ্বাস ও শ্রদ্ধার সঙ্গে শোনা হয়৷‌

১২ সেপ্টেম্বর, শুক্রবার তিনি দিল্লিতে এক পূর্বনির্ধারিত বক্তৃতা দিয়েছেন৷‌ ‘সংখ্যালঘু জাতীয় কমিশন’-এর বার্ষিক বক্তৃতা৷‌ বিষয় ছিল– ‘সংখ্যালঘুদের পথসঙ্কট: বিচারবিভাগীয় ঘোষণা সম্পর্কে মম্তব্য’৷‌ এই সভার সভামুখ্য ছিলেন শ্রীমতী নাজমা হেপতুল্লা– বর্তমান কেন্দ্রীয় সরকারের সংখ্যালঘু বিষয়ক মন্ত্রী৷‌

nariman-main

শ্রীমতী হেপতুল্লা কংগ্রেসের নেত্রী ছিলেন ও রাজ্যসভার উপসভামুখ্যও ছিলেন৷‌ গত সাধারণ নির্বাচনে তিনি বি জে পি-তে যোগ দেন৷‌ শ্রীমতী হেপতুল্লা হলেন মৌলানা আবুল কালাম আজাদের নাতনি৷‌ তাঁকে দলে পেয়ে নিশ্চয়ই তাদের সাম্প্রদায়িক পরিচয় একটু হালকা করার সুযোগ পেয়েছিল বি জে পি৷‌ বি জে পি-কে এমন সুযোগ করে দিয়েছেন আরও কয়েকজন মুসলিম নেতা ও বুদ্ধিজীবী৷‌ বি জে পি-তে যোগ দেওয়ার সময়, গত লোকসভা ভোটের আগে, বি জে পি-র অসাম্প্রদায়িকতা সম্পর্কে তাঁদের নতুন বোধোদয়কে তাঁরা প্রচার করেছিলেন৷‌ বি জে পি-ও কাজে লাগিয়েছিল৷‌

শ্রী নরিম্যানের বক্তৃতায় সাম্প্রতিকতম রাজনীতিতে সাম্প্রদায়িকতার ধারণার এমন তরলতা সংখ্যালঘুদের অস্তিত্বকে যেমন অনিশ্চিত করে তুলছে সেই কথাটাই প্রধান হয়ে উঠেছে৷‌ সাম্প্রদায়িকতা নিয়ে তো অনেক কথাই হয় ও সাম্প্রদায়িকতা বিরোধী যে-কোনও যুক্তিই মান্য৷‌

কথাটা আবারও বলছি– সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে যে কোনও যুক্তিই মান্য৷‌

এই কথাটির আড়ালে আর একটি কথা আছে যা সমান সত্য৷‌ সাম্প্রদায়িকতার পক্ষে কোনও যুক্তির আভাসও গ্রাহ্য নয়৷‌

শ্রী নরিম্যান ঠিক এই জায়গাটিতেই পৌঁছেছেন তাঁর এই বক্তৃতায়৷‌

পৌঁছেছেন তাঁর দীর্ঘ জীবনের জ্ঞান ও অভিজ্ঞতার জোরে, যাকে আমরা প্রাজ্ঞতা বলি৷‌ পৌঁছেছেন ভারতের সংবিধানের ভিত্তি তৈরি করেছে যে রাজনৈতিক দর্শন সে সম্পর্কে তাঁর বৃত্তিগত অভিজ্ঞতা থেকে৷‌ পৌঁছেছেন– সংখ্যালঘুদের সসম্মান নিরাপত্তার আইনি বাধ্যতা সম্পর্কে তাঁর সচেতনতা থেকে৷‌

এই প্রাজ্ঞতা, অভিজ্ঞতা ও সচেতনতা তাঁর এই বক্তৃতাটিকে এমন দৃঢ়তা দিয়েছে৷‌ পি টি আই এই বক্তৃতাটি প্রচার করেছে৷‌ পুরো বক্তৃতাটিই প্রায় প্রত্যেকের অবশ্যপাঠ্য৷‌ আমি এখানে তাঁর কথা দিয়েই প্রধানত তাঁর বক্তব্যের যুক্তিটা সাজানোর চেষ্টা করছি৷‌ যাঁরা চাইবেন তাঁরা  পুরো বক্তৃতাটিই কম্পিউটারে পড়ে নিতে পারবেন এইখানে ক্লিক করে।

শ্রী নরিম্যান তাঁর বক্তৃতা শুরু করেন এই বলে– কেন্দ্রে সংখ্যাগরিষ্ঠ সরকার গঠনকে তিনি স্বাগত জানাচ্ছেন ‘কিন্তু ভয়ে-ভয়ে, অতীতে সংখ্যাগরিষ্ঠ সরকারদের সংখ্যাগুরুবাদের (‘মেজরিটেরিয়ানইজম’) প্রতি পক্ষপাত আমি লক্ষ্য করেছি৷‌’

ভারতের সব ধর্মবিশ্বাসের মধ্যে ‘হিন্দুধর্মের ঐতিহ্যে সহনশীলতা সবচেয়ে লক্ষণীয়৷‌ কিন্তু সাম্প্রতিক কালে উন্মার্গতা ও ঘৃণাগর্ভ বক্তৃতাবাজি দিয়ে উসকোনো সাম্প্রদায়িক উত্তেজনার অবিরল ঘটনা থেকে বোঝা যাচ্ছে হিন্দুদের সহনশীলতার ঐতিহ্যের ওপর ক্রমেই চাপ তৈরি করা হচ্ছে৷‌ এবং আমাকে খোলাখুলি বলতে দিন যে হিন্দুত্ব (শ্রী নরিম্যান নিজেই এই শব্দটির নিচে দাগ দিয়েছেন) ক্রমেই তার সহনশীল মুখটা হারিয়ে ফেলছে৷‌ তার কারণ ও একমাত্র কারণ, এমন কথা বিশ্বাস করা হচ্ছে ও গর্ব করে বলাও হচ্ছে (মাথার ওপরে যাঁরা আছেন, তাঁরা কেউ এই সব কথার কোনও প্রতিবাদও করছেন না) যে হিন্দুত্বের জোরেই (শ্রী নরিম্যান নিজেই ‘হিন্দুত্ব’ শব্দটি বড় হরফে লিখেছেন) তাঁরা শাসনক্ষমতা দখল করতে পেয়েছেন৷‌ আমরা রোজ-রোজ টেলিভিশনে দেখছি ও খবরের কাগজে পড়ছি, কোনও-কোনও ব্যক্তি বা গোষ্ঠী দেশের কোনও-কোনও ধর্মীয় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে জিগির তুলছেন৷‌ এই সব জিগির নিয়ে অনেকেই বলছেন যে কেন্দ্রীয় সরকার এ-সব বন্ধ করার কোনও চেষ্টাই করছে না৷‌ আমি তাঁদের সঙ্গে একমত৷‌’

বি জে পি এম পি যোগী আদিত্যনাথ নির্বাচনী সভাগুলিতে পরপর যা সব বলেছেন তার জন্য নির্বাচন কমিশন তাঁকে তিরস্কার করেছে, তাঁকে হুঁসিয়ারি দিয়েছে ও তাঁর বিরুদ্ধে এফ আই আর করার নির্দেশ দিয়েছে৷‌ আর এস এস-এর প্রধান মোহন ভাগবত ভারতকে ‘হিন্দুজাতির বাসস্হান’ বলে বর্ণনা করেছেন৷‌ নরেন্দ্র মোদি ক্ষমতালাভের পর সঙঘ পরিবারের সঙ্গে যুক্ত অনেক রাজনৈতিক নেতা অনেক উত্তেজক কথা বলছেন৷‌

‘সংখ্যালঘু জাতীয় কমিশনের প্রধান কাজ সংখ্যালঘুদের স্বার্থরক্ষা করা৷‌ সে কাজ তারা করছে না৷‌ সরকার মাত্রই তাদের রাজনৈতিক স্বার্থ অনুযায়ী কিছু কাজ করে ও কিছু কাজ করে না৷‌ সেই কারণেই পার্লামেন্ট স্বাধীন ও নিরপেক্ষ সংখ্যালঘু কমিশন তৈরি করেছে৷‌ কমিশনের প্রধান কাজ সংখ্যালঘুদের স্বার্থরক্ষা৷‌ যদি কোনও সংখ্যালঘু গোষ্ঠীকে প্রতিদিন আক্রমণ করা হয়, নিন্দে করা হয়, ঠাট্টা করা হয়, মানহানিকর ভাষায়, তা হলে তাদের স্বার্থরক্ষা হবে কীভাবে? এর উত্তর হল– এদের বিরুদ্ধে পেনাল কোডের ও ফৌজদারি আইনবিধির ব্যবস্হা প্রয়োগ করে৷‌ অন্যথায় এই কমিশন সংখ্যালঘুদের স্বার্থরক্ষার প্রধান কর্তব্যটিই পালন করতে পারবে না৷‌

‘যাঁরাই ঘৃণা ছড়িয়ে বক্তৃতা করবেন, তাঁদেরকে কোর্ট-এর বিধিব্যবস্হা দিয়ে প্রতিহত করতে হবে৷‌ সেই উদ্যোগ নিতে হবে সংখ্যালঘু কমিশনকে৷‌ কারণ, এই সংগঠনই সংখ্যালঘুদের স্বার্থরক্ষার আইনি সংগঠন৷‌ যাঁরাই এমন ঘৃণা ছড়াবেন, তিনি যে সম্প্রদায়েরই হোন, তাঁর বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্হা নিয়ে তাঁকে আটকাতে হবে ও সেই আইনি ব্যবস্হার কথা ব্যাপকভাবে প্রচার করতে হবে৷‌’

সুপ্রিম কোর্ট বহুবার সংখ্যালঘুদের স্বার্থরক্ষা করেছে ও তারা ‘সুপার সংখ্যালঘু কমিশন’-এর মতো কাজ করেছে৷‌ কিন্তু ১৯৯০-এ বি জে পি যখন জাতীয় রাজনীতিতে ‘সংখ্যালঘু তোষণ’ এই শব্দ ব্যবহার শুরু করে তখন থেকেই বিচার ও আইনের ব্যাখ্যায় কিছু বদল লক্ষ্য করা গেছে৷‌’

‘ওই লেবেলটা সেঁটে গেছে৷‌ সংখ্যালঘু শব্দটি ক্রমে একটা অপ্রিয় শব্দ হয়ে ওঠে৷‌ ও উঠেছে৷‌ সেই একই রাজনৈতিক দল তাদের মে-জুন ১৯৯১-এর নির্বাচনী ইস্তাহারে এ-কথা বলে যে তারা যখন ও যদি ক্ষমতায় আসে, তা হলে তারা সংবিধানের ৩০ সংখ্যক বিধি সংশোধন করবে৷‌ তার ফলে, সংখ্যালঘুদের অধিকার আইন কর্তৃক রক্ষিত হওয়ার সুবিধে অনেক কমে যাবে ও সুপ্রিম কোর্টও সংখ্যালঘুদের অধিকার আর তেমন রক্ষা করতে পারবে না৷‌

এমন বক্তৃতার পর শ্রী নরিম্যানকে সাংবাদিকরা জিজ্ঞাসা করেন– ‘ঘৃণা প্রচার সম্পর্কে আপনার বক্তব্য নিয়ে মন্ত্রী কি কিছু বললেন?’ শ্রী নরিম্যান উত্তর দেন, ‘সেটা ওঁকে জিজ্ঞাসা করুন৷‌’

সভার শেষে সভামুখ্যের ভাষণে সংখ্যালঘু মন্ত্রী নাজমা হেপতুল্লা বলেন, ‘নরেন্দ্র মোদি সরকারের নীতি হল– ‘সবকা সাথ, সবকা বিকাশ’৷‌ পরে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী আমাকে বলেছেন, মুসলিমদের ন্যায় ও যুক্তিসঙ্গত অধিকার রক্ষার জন্য বি জে পি-র নির্বাচনী ইস্তাহারে যা বলা হয়েছে তা পূরণ করতে হবে৷‌’

শ্রী নরিম্যান সেই ইস্তাহার নিয়েই তো প্রশ্ন তুলে দিলেন৷‌ স্হানীয় ভাবে মুসলিম মহল্লাগুলিতে ও যেখানে সম্ভব সেখানেই শ্রী নরিম্যানের বক্তৃতাটি ছেপে বিলি করা যায় না? পত্র-পত্রিকাতেও ছাপা যায় না?

Advertisements

Tags: , , , , , , ,

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s


%d bloggers like this: