Posts Tagged ‘russia’

US Missile Attack On Syrian Airbase

April 10, 2017

Advertisements

Anandabazar Discovers…

October 28, 2015

সরকার বাড়ির আবিষ্কার

ঠুলি সহযোগে উন্মীলিত চোখে বিশ্ব দর্শন করে সরকার বাড়ির কলমচিরা এই স্বতঃসিদ্ধ সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছেন যে, মার্কিন সাম্রাজ্যবাদ বলে এতকাল যা কথিত ও চর্চিত হয়েছে তা এখন অতীত। বর্তমানে তার কোন অস্তিত্ব নেই। এমনকি সাম্রাজ্যবাদের ধারণাটিও নাকি এখন মুছে গেছে। সরকার বাড়ির বাজারি পাঠ্যসূচিতে সাম্রাজ্যবাদ বলে যে বিষয়কে পরিবেশনের চেষ্টা হচ্ছে তার সঙ্গে অর্থনৈতিক আধিপত্যেরও সংযোগ নেই। বস্তুত উদারীকরণ-বিশ্বায়নের যুগে পুঁজির যখন কোন দেশ নেই, সীমানা নেই, সারা বিশ্বটাই যখন তার কাছে অবারিত তখন আধিপত্য, সাম্রাজ্যবাদ বিষয়টাই অপ্রাসঙ্গিক।

এতদ্‌সত্ত্বেও সরকার বাড়ি অতীতের ‘সোভিয়েত সাম্রাজ্যবাদের’ মতো এখন নতুন এক সাম্রাজ্যবাদ আবিষ্কার করেছে। সেটা চীনের ভূ-রাজনৈতিক সাম্রাজ্যবাদ। গাঁয়ে মানে না আপনি মোড়লের মতো সরকার বাড়ির স্বঘোষিত জ্যাঠামশাইদের এই পাঠ্যসূচিই তাদের বাজারি পাঠশালায় নিত্যদিন আপ্তবাক্যের মতো গেলানো হচ্ছে। জ্যাঠামশাইরা এই ভেবে আত্মশ্লাঘা অনুভব করেন বাংলার মানুষের যাবতীয় চিন্তা-চেতনার ঠিকাদারি নিয়েছেন তাঁরা। তাঁরা যে পাঠ দান করবেন সেটাই এগিয়ে থাকার বীজমন্ত্র। সাম্রাজ্যবাদ সম্পর্কিত নতুন তত্ত্ব তারই নবতম সংযোজন।

কিন্তু সমস্যা হচ্ছে বামপন্থীদের নিয়ে। বামপন্থীরা সরকার বাড়ির উদ্ভট পাঠ্যসূচিকে পাত্তা দেয় না। বামপন্থীরা চলে তাদের নিজস্ব পথে, নিজস্ব দৃষ্টিভঙ্গিতে ও নিজস্ব বিশ্লেষণে। তাই সরকার বাড়ির ঠুলিপরা চোখে মার্কিন সাম্রাজ্যবাদ উধাও হয়ে গেলেও বামপন্থীদের খোলা চোখে ধরা পড়ে মার্কিন সাম্রাজ্যবাদের ভয়ংেকর উপস্থিতি এবং অতি সক্রিয়তা। এই ভাবনা-বিশ্লেষণই বামপন্থীদের সাম্রাজ্যবাদ-বিরোধী লড়াইয়ের ময়দানে অবিচল রেখেছে। তারজন্যই কলকাতায় সম্প্রতি সংগঠিত হয়েছে বিশাল সাম্রাজ্যবাদ-বিরোধী মিছিল। উপলক্ষ বঙ্গোপসাগরে মার্কিন নেতৃত্বে ত্রিদেশীয় নৌ-মহড়া। আমেরিকার নেতৃত্বে এশিয়া-প্রশান্তসাগরীয় তথা ভারত-প্রশান্তসাগরীয় অঞ্চলে নতুন সামরিক জোট গঠনের প্রক্রিয়ারই অঙ্গ এটা। তাই বামপন্থীরা রাস্তায়।

এ কারণেই বামপন্থীদের নিয়ে মহা সমস্যায় সরকার বাড়ি। বামপন্থীরা এতটাই বেয়াড়া যে সরকার বাড়ির তত্ত্বকে ফুৎকারে উড়িয়ে দিয়ে মার্কিন সাম্রাজ্যবাদের বিরুদ্ধে গর্জে উঠছে, মিছিল করছে। গাত্রদাহ হওয়াই স্বাভাবিক। তাই বামপন্থীদের যুক্তি-বিশ্লেষণের ধারে কাছে না গিয়ে মোটা দাগের কিছু শব্দ ব্যবহার করে বামপন্থীদের নিন্দা-মন্দ করা হচ্ছে। গায়ের ঝাল ঝাড়ার জন্য আশ্রয় নেওয়া হচ্ছে ব্যঙ্গ-বিদ্রূপের। ক্ষুরধার যুক্তি আর বাস্তবতার তীক্ষ্ণ বিশ্লেষণে বাম-মতাদর্শ তথা মার্কসবাদ-সাম্যবাদকে ধরাশায়ী করা অসম্ভব বলেই তাদের এই বালখিল্য আচরণ। বামপন্থীরা নাকি বিদেশি তত্ত্ব নিয়ে দুনিয়া কাঁপায়, দেশের খবর রাখে না। মস্কোয় বৃষ্টি হলে ভারতের বামপন্থীরা মাথায় ছাতা ধরে। বাজারি কাগজের এমন বিনোদনী বালখিল্যপনা পথেঘাটে চা-দোকানে নিম্নমানের আড্ডার মশলা হতে পারে। উচ্চমানের বিতর্ক-বিশ্লেষণে ঠাঁই মেলে না।

ঠাণ্ডা যুদ্ধের সময় বাজারি চোখে সাম্রাজ্যবাদ ধরা পড়েছিল। তবে সেটা ‘সোভিয়েত সাম্রাজ্যবাদ’। সোভিয়েত বিপর্যয়ের পর সরকার বাড়ি আর সাম্রাজ্যবাদ দেখতে পায়নি। এই সময়কালে বিশ্বের সর্বত্র অন্তত একশটি যুদ্ধ সংঘাতে মার্কিন সামরিক হস্তক্ষেপ হলেও, ইরাকে, আফগানিস্তানে, লিবিয়ায় সামরিক অভিযান চললেও মার্কিন সাম্রাজ্যবাদের অস্তিত্ব খুঁজে পায়নি সরকার বাড়ি। সারা বিশ্বে মার্কিন ভূখণ্ডের বাইরে প্রায় এক হাজার মার্কিন সামরিক ঘাঁটি কি কারণে সরকার বাড়ি জানতে চায় না। ভারত মহাসাগরে আমেরিকার এত উৎসাহের উৎস কোথায় প্রশ্ন করে না তারা। অথচ দেশের বাইরে চীনের একটাও সামরিক ঘাঁটি নেই। অন্য দেশে সামরিক হস্তক্ষেপের কোন নজির নেই। তথাপি বাজারি চো‍‌খে আবিষ্কৃত হয়েছে ‘চীন সাম্রাজ্যবাদ’। অতএব জ্যাঠামশাইদের মতে আমেরিকা নয়, যদি মিছিল করতে হয় তবে চীনের বিরুদ্ধেই করা উচিত।

Resist US Attack on Syria

August 30, 2013

330517

Target China

June 5, 2012

 

Patriotism is the Last Resort of a Scoundrel

February 5, 2012

 

Red Salute Comrade Stalin

December 21, 2011

 

stalin

[Please click here to enlarge]